এক সফল খামারির গল্প

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরের জাফরাবাদ গ্রামের অনবদ্য সৃষ্টিশীল এক সফল খামারি রোমান আলী শাহ। তিনি তাঁর মেধা আর পরিশ্রমে যেমন আর্থিকভাবে সফলতা পেয়েছেন, তেমনি দেশপ্রেম আর সৃষ্টিশীলতায় তৈরি করেছেন অনন্য দৃষ্টান্ত। তাঁর সেই অনন্য সৃষ্টি দেখতে স্থানীয়সহ আশপাশের লোকজন ছুটে আসছেন। পরিবার পরিজন নিয়ে মুগ্ধতায় ঘুরছেন এদিক সেদিক। এমন নির্মল মুগ্ধতায় খুশি আগতরা।

খামারি রোমান আলী শাহ জানান, তিনি কর্মজীবনের শুরুতে ১৯৯৬ সালে মধ্যপ্রাচ্যে পাড়ি জমিয়েছিলেন ভাগ্য বদলের আশায়। কিন্তু সেখানে তিনি সফল হতে পারেননি। ব্যর্থ ও রিক্ত হয়ে পাঁচ বছর পর ২০০১ সালে দেশে ফিরে আসেন তিনি। পরের বছর দেশের বিভিন্ন দপ্তরে চাকরির আশায় ছুটাছুটি করেন। কিন্তু চাকরি নামের সোনার হরিণের দেখা তিনি পাননি।

পরে ২০০২ সালের দিকে তিনি প্রথমে তিন বিঘা পৈত্রিক জমির ওপর গড়ে তোলেন এই খামারবাড়ি। এক জোড়া করে গরু, ছাগল, হাঁস, মুরগি, কবুতর ইত্যাদি দিয়ে শুরু করেন তিনি। পরিশ্রম আর মেধায় তিনি সফল হন। এই সফলতায় উদ্ভাসিত হয়ে তিনি তাঁর খামারকে বর্ধিত করেন। পুকুর কেটে শুরু করেন মাছের চাষ। গড়ে তোলেন থাই পেয়ারার বাগান। রোপন করেন আম, ডালিম ইত্যাদি দেশীয় ফলের গাছ। খামারের প্রাণীদের জন্য চাষাবাদ করেন মাটিবিহীন ও নেপিয়ার ঘাস।

অন্যদিকে, স্থানীয় কৃষকদের ন্যায্যমূল্য, সঠিক মাপ ও মানের কৃষিপণ্যের সেবা দিতে গড়ে তুলেছেন কৃষিক্লাব নামের একটি দোকান। যেখানে বিক্রি হয় বিভিন্ন প্রকার সার, কীটনাশকসহ সবজি বীজ।

রোমান আলী শাহ শুধু যে নিজেই আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন এই খামার থেকে, তা নয়। তিনি এখানে মানুষদের বিনোদনের জন্য পেয়ারা বাগান, পুকুরঘাটের বিভিন্ন স্থানে পার্কের আদলে বসার ব্যবস্থা করেছেন। বাগানের একপাশে কেটেছেন খাল। পুকুরের পানি সেই খালে প্রবাহিত হয়ে অপরূপ সৌন্দর্যের সৃষ্টি করেছে। সেখানে মাছ শিকারী নানান পাখি এসে বসে। যা দর্শনার্থীদের মুগ্ধ করে।

এ ছাড়া রোমান আলী শাহ তাঁর খামারের এক পাশে পালং আর লাল শাক রোপনের মাধ্যমে তৈরি করেছেন বাংলাদেশের মানচিত্র ও নৌকা। যা দেখলে যে কারোর চোখ মুগ্ধতায় ভরে উঠবে। তিনি এই খামারে গত ২১ শে ফেব্রুয়ারিতে ভাষা শহীদদের প্রতি সম্মান জানিয়ে শাক দিয়ে তৈরি করেছিলেন শহীদ মিনার। যা তাঁকে নন্দিত করে। সফল ও অনবদ্য সৃষ্টিশীল এই খামারি তাঁর খামারটিকে আরও বর্ধিত করতে সরকারি সহায়তা কামনা করেছেন।

রোমান আলী শাহের এই খামারবাড়ি দেখতে প্রতিদিন স্থানীয় লোকজনসহ আশপাশের দর্শনার্থীদের ভিড় লেগেই থাকে। তারা খামার বাড়িতে ঘুরে দেখে নির্মল বিনোদন পেয়ে মুগ্ধ।

কিশোরগঞ্জের ভৈরবের সৃষ্টিশীল খামারি রোমান আলী শাহের খামারে দর্শনার্থীরা ঘুরে ফিরে দেখছেন। ছবি : এনটিভি
রোমান আলী শাহকে একজন আদর্শ কৃষক উল্লেখ করে কুলিয়ারচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবাইয়াত ফেরদৌসী বলেন, ‘রোমান আলী কেবল একজন কৃষক নন, তিনি তাঁর উৎপাদনশীলতায় দেশপ্রেমকে ফুটিয়ে তুলেছেন। তাঁকে আর্থিকভাবে সহায়তা করতে কৃষি বিভাগকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।’

এ ছাড়া প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাঁকে পুরস্কৃত করতে এরই মধ্যে বিভিন্ন দপ্তরে সুপারিশ পাঠিয়েছেন বলেও জানান এই কর্মকর্তা।