ঘুম থেকে জেগে যে ৮ আমল করবেন

ঘুম আমাদের নিত্যদিনের কর্ম। ঘুম ছাড়া কোন মানুষ বাঁচতে পারে না। আল্লাহ তায়ালা কুরআনে বলেছেন— তিনিই তোমাদের জন্য রাতকে আবরণ ও নিদ্রাকে আরামপ্রদ করেছেন এবং দিনকে করেছেন জাগ্রত থাকার সময়। সূরা: আল ফুরকান, আয়াত ৪৭।

ঘুম থেকে জাগ্রত হওয়ার পর কী করতে হয়, হাদিসে এ নিয়ে হাদিসে বিভিন্ন নির্দেশনা এসেছে। সবগুলো আমল করতে না পারলেও অন্তত দুই-চারটি করা যায়। এতে দিনটি সুন্দরভাবে শুরু হবে। কল্যাণকর ও বরকতময় হবে। ঘুম থেকে উঠে মুমিনের করণীয় হলো—

  • ঘুম থেকে উঠে সর্বপ্রথম করণীয় হলো, হাত দিয়ে চেহারা থেকে ঘুমের প্রভাব দূর করা। (বুখারি, হাদিস : ১৮৩)
  • ঘুম থেকে উঠে দোয়া পড়া— الحمدلله الذي أحيانا بعدما أماتنا و إليه النّشور

উচ্চারণ : ‘আলহামদু লিল্লাহিল্লাজি আহইয়ানা বা’দা মা আমাতানা ওয়া ইলাইহিন নুশুর।’

অর্থ : সমস্ত প্রশংসা আল্লাহর জন্য, যিনি আমাদের মৃত বানানোর পর জীবিত করেছেন। আর তার দিকেই পুনরুত্থান। (বুখারি, হাদিস : ৬৩২৪)

  • আল্লাহর কাছে দোয়া করা। উবাদা ইবনে সামেত (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে নবী করিম (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘যে ব্যক্তি রাতের ঘুম থেকে জাগ্রত হয়ে এই দোয়া পাঠ করবে— لا إله إلا الله وحده لا شريك له، له الملك وله الحمد وهو على كل شيء قدير، الحمد لله، وسبحان الله، ولا إله إلا الله الله أكبر، ولا حول ولا قوة إلا بالله.

উচ্চারণ : ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহদাহু লা শারিকা লাহু, লাহুল মুলকু ওয়া লাহুল হামদু, ওয়া হুয়া আলা কুল্লি শাইয়্যিন ক্বাদীর, আল-হামদু লিল্লাহ, ওয়া সুবহানাল্লাহ, ওয়ালা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবার, ওয়ালা হাওলা ওয়ালা কুওয়্যাতা ইল্লা বিল্লাহ।’

অথবা বলবে, ‘আল্লাহুম্মাগ ফিরলি’

اللهم اغفرلي

অর্থ : ‘হে আল্লাহ, আপনি আমাকে ক্ষমা করে দিন।’

অথবা অন্য যেকোনো দোয়া করবে। তার এই দোয়া কবুল করা হবে। আর যদি কেউ অজু করে এবং নামাজ আদায় করে, তার নামাজ কবুল করা হবে। (বুখারি, হাদিস : ১১৫৪)

  • আকাশের দিকে তাকিয়ে সুরা আলে ইমরানের শেষ ১০ আয়াত পড়া। (মুসলিম, হাদিস : ৬৭৩)
  • মিসওয়াক করা। রাসুল (সা.) ঘুম থেকে উঠে মিসওয়াক করতেন। (বুখারি, হাদিস : ২৪৫)

মিসওয়াক করতে না পারলে ব্রাশ করে নেবে অথবা অন্য কোনোভাবে দাঁত ও মুখ পরিস্কার করে নেবে।

  • অজু করে পবিত্রতা অর্জন করে নেওয়া। আর গোসল ফরজ হলে, গোসল করে পবিত্র হয়ে নেওয়া।
  • সম্ভব হলে শেষরাতে উঠে তাহাজ্জুদ সালাত আদায় করা। শেষ রাত আল্লাহর কাছে তওবা করার সর্বোত্তম সময়। আল্লাহ তাআলা জান্নাতবাসীদের সম্পর্কে পবিত্র কোরআনে ইরশাদ করেন, ‘তারা শেষরাতে ক্ষমা প্রার্থনা করে।’ (সুরা জারিয়াত, আয়াত : ১৮)
  • জামাতের সঙ্গে ফজরের সালাত আদায় করবে। এরপর নিজের কাজে বা বিশ্রামে কিংবা নাস্তা ইত্যাদিতে মনোনিবেশ করবে। আল্লাহ তাআলা সবার দিন সুন্নত মোতাবেক শুরুর তাওফিক দান করুন।