চ্যাম্পিয়ন্স লিগ চ্যাম্পিয়ন চেলসি

ম্যানচেস্টার সিটির স্বপ্ন গুড়িয়ে দিয়ে নিজেদের ২য় চ্যাম্পিন্সলিগ শিরোপা ঘরে তুলেছে চেলসি। ফাইনালে সিটিজেনকে ১-০ গোলে হারিয়েছে ব্লুরা। তাই প্রথমবার ফাইনালে উঠেও শিরোপার স্বাদ নেয়া হলো না ম্যানসিটির।

পর্তুগালের উপকূলীয় শহর পোর্তোয় চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনাল। কার হাতে উঠবে ইউসিএলের শিরোপা? সিটির প্রথম নাকি চেলসির ২য়।

ফাইনালে নিয়মিত একাদশই নামিয়েছেন চেলসি বস টুখেল। তবে সিটির ইলেভেন গরমিল। একাদশে নেই কোন নাম্বার নাইন আর হোল্ডিং মিড ফিল্ডার, সাথে অফফর্ম স্টার্লিংকে দেখে খটকা লাগে ভক্তদের মনে।

ইপিএল কিংবা ইউসিএল পুরো মৌসুমে দাপট দেখানো সিটি ফাইনালে কিছুটা বিবর্ণ। ফার্নান্দিনিও কিং রদ্রি দুই ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডারের কেউই না থাকায় রক্ষণে যেমন হয়েছে সমস্যা তেমনি ফুলব্যাকও ঠিকমতো উঠতে পারেননি অ্যাটাকে।

স্টার্লিংয়ের অফফর্মও সিটিকে ভুগিয়েছে বেশ। সেলসি স্ট্রাইকার ভেরনারের ফিনিশিংয়ের দূর্বলতার জন্য বেশ কয়েকটা গোল থেকে রক্ষা পেয়েছে সিটিজেনরা। ৪২ মিনিটে আর রক্ষা হয়নি ম্যানসিটির। গার্দিওলার ডিফেন্স ভেঙে ডুকে গিয়ে সইজেই ব্লুদের লিড এনে দিয়েছেন জার্মান অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার ক্যাই হাভার্টজ।

পুরো মৌসুমে দাপট দেখানো সিটি গোল খাওয়ার পর হতাশায় ডুবেছে বেশি। পুরো ম্যাচে ৭টা শট নিয়ে মাত্র একটাই টার্গেটে রাখতে পেরেছে ওরা।

লিড নিয়ে সেকেন্ড হাফে কিছুটা ডিফেন্সিভ ট্যাকটিসে মুভ করেছেন টুখেল। কাজেও দিয়েছে বেশ। পুরো ম্যাচ শেষ হয়েছে ১-০ গোলেই।

জয়ে যেমন উৎসবে মেতেছে চেলসি, তেমনি চোখের জলে ভিজেছে সিটি শিবির। আবারো প্রশ্ন উঠেছে গার্দিওলার এক্সপেরিমেন্ট নিয়ে। কিন্তু ম্যাচ শেষে ওসব নিয়ে কী আর ভাবার সময় আছে প্রতিপক্ষের।

ইতিহাস গড়া হলো না ম্যানসিটির তবে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ২য় শিরোপাটা উঠল চেলসির ঘরে। কোচ টুখেলও পেয়ে গেলেন প্রথম ইউসিএল ট্রফির স্বাদ। এখন তাই শুধুই ব্লুদের উৎসবে মাতার পালা।