ছানি অপারেশনের পর সতর্কতা যে কারণে জরুরি

ডা. মো. ছায়েদুল হক

কনসালট্যান্ট, আইডিয়াল আই কেয়ার সেন্টার

চোখের ভেতর থাকে প্রাকৃতিক স্বচ্ছ লেন্স। যদি কোনো কারণে প্রাকৃতিক লেন্সটি স্বচ্ছতা হারিয়ে ফেলে অর্থাৎ ঘোলা হয়, তবে আলোকরশ্মি চোখের ভেতরে প্রবেশে বাধাপ্রাপ্ত হয়। লেন্সের এই ঘোলা অবস্থাটির নামই ক্যাটারেক্ট বা ছানি।

ছানির চিকিৎসা অপারেশন। ঘোলা লেন্স কেটে ফেলে দিয়ে সেখানে একটি স্বচ্ছ কৃত্রিম লেন্স প্রতিস্থাপন করা হয়। কৃত্রিম লেন্স প্রতিস্থাপন করলে অপারেশনের পর চোখের দৃষ্টি ফিরে আসে।

চিকিৎসা পদ্ধতি: ফ্যাকো অপারেশন আধুনিক পদ্ধতি। এতে সামান্য কাঁটা-ছেঁড়ার বিষয় থাকে। ঝুঁকি হলো, অপারেশনের পর ইনফেকশন। পোস্ট অপারেটিভ ইনফেকশন থেকে চোখ বাঁচাতে তাই অপারেশন-পরবর্তী চোখে পানি লাগানো, চোখে হাত দেওয়া বা ময়লা কাপড়ে চোখ মোছা বা চোখ পরিষ্কার করা, গোসল করা ইত্যাদি বারণ করা হয়। ডায়াবেটিস রোগীর ইনফেকশনের শঙ্কা বেশি থাকে। তাই ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করা খুব জরুরি। অপারেশন-পরবর্তী চলাফেরায় কিছু বিধিনিষেধ থাকে। তাই এ সময়ে খাওয়া-দাওয়ায় অধিকতর সতর্কতা প্রয়োজন।

আরেকটি হলো, নিয়ম করে ওষুধ ব্যবহার করা। এসব মেনে চললে ইনফেকশন থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে। অপারেশনের পর এক মাসের মধ্যে যে কোনো সময় হঠাৎ দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে আসা, চোখ হঠাৎ লাল হওয়া ও ব্যথা হওয়া এবং চোখ দিয়ে অনবরত পানি ঝরা ইত্যাদি উপসর্গ সার্জনের নজরে আনতে হবে। কারণ এগুলো বেশির ভাগ সময় ইনফেকশনের লক্ষণ।

অনেক রোগীই কর্মক্ষম থাকে। নিয়মিত অফিস, পড়ালেখা বা কম্পিউটারে কাজ করেন। প্রশ্ন করেন, অপারেশনের কতদিন পর কাজ করতে পারবেন। জরুরি হলে সপ্তাহখানেক বিশ্রামে থেকে কাজে যেতে পারবেন। তবে স্ক্রিনে কাজ করতে হলে প্রাথমিক অবস্থায় যতটুকু সহনীয়, ততটুকু। দ্বিতীয় প্রশ্নটি থাকে, কালো চশমা কতদিন পড়তে হবে। অপারশনের পর যেহেতু আলো বাধাহীনভাবে চোখে প্রবেশ করে, তাই এক ধরনের অস্বস্তি হয়। তাই কালো চশমা দেওয়া হয়, যাতে আলোয় চোখ সহনীয় থাকে। আলোয় খারাপ না লাগলে কালো চশমা পরিহার করতে সমস্যা নেই। তৃতীয়টি হলো, গোসল করবে কতদিন পর। অনেক সার্জনের পছন্দ এক মাস। তবে ফ্যাকো পদ্ধতিতে অপারেশন হলে দুসপ্তাহ পর গোসল করা যাবে। তবে বিষয়টি অপারেশন-পরবর্তী ধাপে সার্জনদের পরামর্শ মেনে চলতে হবে।

অনেকে জানতে চান, একটি অপারেশনের কতদিন পর অন্য চোখে অপারেশন করা যাবে। এক্ষেত্রে জরুরি না হলে অন্তত এক মাস পরই করা যাবে। যেহেতু অপারেশন-পরবর্তী এক মাস ইনফেকশনের ঝুঁকি থাকে, তাই এ সময়ের পর দ্বিতীয় অপারেশনে যাওয়া ভালো। সেক্ষেত্রে সার্জনের পরামর্শে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে ইনফেকশন ছাড়াও দৃষ্টি ঝাপসা হতে পারে। যেমন— আগে থেকে বিদ্যমান ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, কিডনি রোগ ইত্যাদি সমস্যাজনিত রেটিনোপ্যাথি, গ্লুকোমা, মেকুলার ডিজেনারেশন, রেটিনাল ডিটাচমেন্ট, মেকুলার হোল, রক্তনালি ও রক্তক্ষরণজনিত সমস্যা, ইউভিয়াইটিস জটিলতা ইত্যাদি। এমন পরিস্থিতিতে পরবর্তী ধাপের চিকিৎসা নিতে হবে। ছানি অপারেশনের শতভাগ সুফল পেতে অপারেশন-পরবর্তী কয়েক সপ্তাহ চোখের যত্ন নেওয়া খুব গুরুত্বপূর্ণ ।