নবীদের পুণ্যভূমি ফিলিস্তিনের প্রতি নির্মোহ ভালোবাসা

মাহদী হাসান।।

অগনিত নবী-রাসুলের পদধূলিতে ধন্য আরদে মুকাদ্দাসা। ফিলাস্তিন। কী সুন্দর নাম। তোমার নামে স্বপ্ন জাগে, তোমায় পথে হেঁটে যাওয়ার। স্বপ্ন জাগে নবীদের হেঁটে চলা পথের ধারে বসে থাকার। স্বাদ জাগে মনভরে দেখার। কী মিষ্টি নামটি তোমার হে আকসা, হে ফিলিস্তিন। বর্ণে বর্ণে যেন মধু ঝরে। মুক্তা ঝরে।

দূর শৈশবেই শুনেছি তোমার কথা। তোমার মাটির কথা। তোমার পবিত্রতার কথা। তোমার সবুজ সৌন্দর্যের কথা। তোমার তুষার শুভ্রতার কথা। আরো শুনেছি তোমার বুকে যে লক্ষ প্রাণের ঝিলিমিলি তারকাদের কথা। তাদের সরলতার কথা। আরদে মুকাদ্দাসার প্রতি তাদের ভালোবাসার কথা। তাদের ত্যাগের কথা।

এই ছোট্ট হৃদয়ে তোমাকে নিয়ে যে কত কল্পনা ছিল। কারণ তোমার বুকেই ছিল নবীদের পূণ্যভূমি। অগনিত নবী-রাসূলের চরনধূলিতে পূতপবিত্র ছিল তোমার বুক। রব্বে কা’বা তোমাকে বিশেষ মর্যাদা দিয়েছেন। তোমাকে বানিয়েছেন ইসরার মার্কায। তোমার চার পাশে রয়েছে বরকতের ঝর্না ধারা। রহমতের ফল্গুধারা। দয়া-মমতার নির্মোহতা। বহু আগ থেকেই তোমার প্রতি রয়েছে আমার ছোট্ট হৃদয়ের অবুঝ ভালোবাসা। কচি মনের নির্মোহ টান।

অনেক ছোট্ট থেকেই তোমার কথা অনেক শুনেছি। তোমাকে নিয়ে অনেক পড়েছি। তোমাকে শুনে , তোমাকে পড়ে, কখনও হেসেছি, অবুঝ হাঁসি। কখনও কেঁদেছি, অবুঝ কান্না। কখনো স্বপ্নে আল আকসার গায়ে হেলান দিয়ে দাঁড়িয়ে আছি। কল্পনা করেছি এখানটাতেই বাধা ছিলো রাসুল সা. এর বোরাক।

আরো কত কী কল্পনায় স্বপনে এঁকেছি। আর যখনই শুনতে পাই তোমার কষ্টের কথা; তোমার প্রতি জুলুম নির্যাতনের কথা; তোমার জন্য আমার ছোট্ট হৃদয়টা মোচর দিয়ে ওঠে। কান্না উথলে উঠে। দু’চোখ ঝাপসা হয়ে আসে। চোয়াল বেয়ে অশ্রু গড়িয়ে পরে নিরবে। আমি হাসতে ভুলে যাই। আমি আনন্দ পেতে ভুলে যাই। আমি কথা বলতে ভুলে যাই। কারণ তোমার মুখে যে হাসি নেই, তোমার বুকে যে স্বপ্ন নেই। তোমার যে আজ স্বাধীনতা নেই। আহ! আহ! আহ! তোমার বুক থেকে প্রতিনিয়ত রক্ত ঝরছে। অশ্রু ঝরছে। তোমার বুক থেকে লাল খুন ঝরছে।

তোমার পবিত্র মাটি আজ রক্তে রঞ্জিত। তোমার আকাশে বাতাসে আজ হায়নার উন্মুক্ত উল্লাস। মজলুমানের বুকফাটা আর্তনাদ। সত্যিই ফিলিস্তিনের অবস্থা আজ ভালো নেই। ফিলিস্তিন ইস্যু একটি সর্বব্যপী ইসলামী ইস্যু, এমন একটি ইস্যু, যা মুসলিম উম্মাহকে উদ্বিগ্ন করে রাখে। ফিলিস্তিন বিষয়টি জড়িয়ে আছে মুসলিম উম্মাহর আকিদার সাথে, আর আকিদা বিষয় এমন যা কোন মুসলমান এড়িয়ে চলতে পারবে না।

ফিলিস্তিন ঐ মুসলমানের ইস্যু যে কিনা নিজের ধর্মের উপর শ্রদ্ধাশীল। আমাদের রব তাঁর কিতাবে যা বলেছেন তার উপর শ্রদ্ধাশীল। আমাদের রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যা বলেছেন হাদিসের মধ্যে তার উপর শ্রদ্ধাশীল। কারণ এটা আরদে মুকাদ্দাসা যার চার পাশে রয়েছে বরকতের সমাহার।

এটা মুসলমানদের প্রথম কেবলা। তৃতীয় হারাম। এখানে রয়েছে মাসজিদুল আকসা। ফিলিস্তিনের বিষয়টি সবকিছুর ঊর্ধ্বে। এটা দখলকৃত সাধারণ কোন ইসলামী ভূখণ্ড নয়, যা স্বাধীন করা মুসলমানদের উপর ওয়াজীব। কেননা আল্লাহ রাব্বুল আলামিন এই ভূখণ্ডে এমন অনেক উপাদান রেখেছেন যেগুলো প্রত্যেক মুসলমানের কাছে এই ভূখণ্ডকে পবিত্র সাব্যস্ত করেছে।

নারী-পুরুষ, ছোট বড়, নিকটবর্তী দূরবর্তী, আরব অনারব কেউ তা অস্বীকার করে না। সব ধরনের মুসলমান বিশ্বাস করে এই ভূখণ্ড পবিত্র। রব্বে কারিমের নিকট আমাদের চাওয়া তিনি যেন আমাদের কে বাস্তবতা দেখিয়ে দেন। সত্যের পথ দেখান। পবিত্র ভূখণ্ড ফিলিস্তিনকে হায়নাদের কবল থেকে রক্ষা করেন। নিশ্চয়ই তিনি সবকিছুর উপর ক্ষমতা রাখেন। আমিন ইয়া রাব্বী।