ফিফা নারী বিশ্বকাপে যেসব তারকার দিকে সবার নজর থাকবে

ফিফা নারী বিশ্বকাপ ২০২৩ শুরু হয়েছে। এই টুর্নামেন্টের ইতিহাসে এই প্রথমবারের মতো একগুচ্ছ তারকা একত্রিত হয়েছেন যারা ফুটবল পিচে জাদু দেখাবেন বলে আশা করা হচ্ছে। এবারই প্রথম এই বিশ্বকাপে ৩২টি দল হাজির হয়েছে। এসব ম্যাচের টিকেট বিক্রি রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। বিশ্বজুড়ে নারী ফুটবলাররা যে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে এটা তারই প্রমাণ। আর আগামী এক মাস ধরে এদের জয়-পরাজয় দেখা যাবে অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডে, যারা যৌথভাবে এই বিশ্বকাপের আয়োজন করেছে। আন্তর্জাতিক ফুটবলের যেসব কিংবদন্তি তাদের ক্যারিয়ারের শেষ ধাপে পৌঁছে গেছেন, তাদের থেকে শুরু করে নতুন প্রজন্মের ফুটবলার যারা দেশকে ২০শে অগাস্ট ফাইনালের গৌরবের দিকে নিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন দেখছেন, তারা সবাই সামিল হয়েছেন এবারের বিশ্বকাপে। আমরা ১২ জন ফুটবলারকে বেছে নিয়েছি যাদেরকে এবারের বিশ্বকাপের প্রধান নায়িকা হিসেবে বর্ণনা করা যায়—

          

স্টেফানি বানিনি, আর্জেন্টিনা
ফুটবলের আলোচনা সাধারণত শুরু হয় আর্জেন্টিনা দিয়ে। সেখানে ৩৩-বছর বয়সী ফুটবল ভেটারান এবং দলের অধিনায়ক এস্তেফানিয়া বানিনির নামই সবার সামনে চলে আসে। তিনি বর্তমানে স্প্যানিশ মহিলাদের ফার্স্ট ডিভিশনে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের একজন মিডফিল্ডার হিসেবে খেলছেন। চলতি মৌসুমে তিনি ২৮টি লিগ গেম খেলেছেন, দুটিতে গোল করেছেন এবং একটি গোলে সহায়তা করেছেন। তার পেশাদার ফুটবল জীবনের শুরু ২০১০ সালে। অ্যাবসলিউট অ্যালবিসেলেস্টে ক্লাবের হয়ে ২০১৪ সালে তার দল চিলিতে দক্ষিণ আমেরিকান গেমসে শিরোপা জিতেছিল। ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অফ হিস্ট্রি অ্যান্ড স্ট্যাটিস্টিকস (আইএফএফএইচএস) এই ম্যাচটিকে দক্ষিণ আমেরিকান ফুটবলে ২০১১-২০২০ দশকের সেরা ১১ ম্যাচে অন্তর্ভুক্ত করেছে।


স্যাম কার, অস্ট্রেলিয়া
বিশ্বকাপ যদি হলিউডের মুভি হতো তাহলে তার প্রধান চরিত্রে অভিনয় করার জন্য স্যাম কারকেই বেছে নেয়া হতো। উনত্রিশ-বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড স্বাগতিক দেশ অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক। তিনি তাদের সবচেয়ে সুপরিচিত আন্তর্জাতিক খেলোয়াড়, এবং যে নামে তার দলটি পরিচিত, সেই ‘মাটিল্ডা’র ইতিহাসে তিনিই সর্বোচ্চ গোলদাতা।


মার্টা ভিয়েরা, ব্রাজিল
ব্রাজিলকে বাদ দিয়ে ফুটবল হয় না এবং মার্টা ভিয়েরাকে বাদ দিয়ে আপনি ফুটবলের আলোচনা চালাতে পারবেন না। ফিফার সেরা বিশ্ব নারী খেলোয়াড় হিসাবে তিনি ছয়বার নির্বাচিত হয়েছেন। ব্যক্তিগত ক্যারিয়ার এবং স্কোরার হিসাবে তার সাফল্য সেই সাক্ষ্যই দেয়। ব্রাজিল টিমে ভিয়েরা সর্বকালের সর্বোচ্চ স্কোরার (১১৫ গোল) এবং পুরুষদের নিয়ে বিশ্বকাপের ইতিহাসে ১৭ গোল করে তিনি সর্বোচ্চ গোলদাতাদের একজন। বর্তমানে অবসরে যাওয়া জার্মান ফুটবলার মিরোস্লাভ ক্লস ১৬ জনের এই তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছেন। মার্টা অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডে এবার তার ষষ্ঠ বিশ্বকাপে খেলছেন। তবে ৩৭-বছর বয়সী এই ফুটবলার গত ১২ মাস ধরে ইনজুরি সমস্যায় ভুগছেন। দু’হাজার সাত সালে চীনে জার্মানির বিপক্ষে ফাইনালে তারা দীর্ঘ প্রতীক্ষিত বিশ্ব শিরোপা জয়ের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গিয়েছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত একটি পেনাল্টি মিস ম্যাচের চূড়ান্ত ফলাফল নির্ধারণ করেছিল।তবে ঐ পরাজয় মার্টার ফুটবল কেরিয়ারে কোন কলঙ্কের ছাপ ফেলতে পারেনি। তার কেরিয়ার এতটাই আকর্ষণীয় যে রোনালদিনো, রোমারিও, এমনকি পেলের সাথেও তাকে তুলনা করা হয়।


লিন্ডা কাইসেডো, কলম্বিয়া
তার বয়স হয়েছে সবে মাত্র ১৮ বছর, কিন্তু তার প্রতিভা ইতোমধ্যেই তাকে রিয়াল মাদ্রিদের নারী ফুটবল টিমে যোগ দিতে সাহায্য করেছে। এই দলটির আশা, স্প্যানিশ ফুটবলে তারা বার্সেলোনা এবং অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের আধিপত্যকে চূর্ণবিচূর্ণ করে দেবে। গত বছর গ্লোব সকার অ্যাওয়ার্ডে স্প্যানিশ তারকা অ্যালেক্সিয়া পুটেলাসের পর তাকেই বিশ্বের দ্বিতীয় সেরা ফুটবলার হিসেবে বেছে নেয়া হয়। একজন ফরোয়ার্ড হিসেবে কাইসেদা গত ফেব্রুয়ারি মাসে রিয়ালে যোগদান করেন। তারপর থেকে তিনি দুটি গোল এবং চারটি অ্যাসিস্টসহ মোট ১০টি ম্যাচ খেলেছেন। তিনি ২০২১ আমেরিকা ডি ক্যালির হয়ে এবং ২০১৯ সালে দেপোর্তিভো ক্যালির হয়ে কলম্বিয়ান মহিলা লিগে দু’বার চ্যাম্পিয়ন হন। দু’হাজার বাইশ সালে তিনি কোপা আমেরিকা ফেমেনিনাতে রানার-আপ হয়েছিলেন, ফাইনালে ব্রাজিলের বিপক্ষে ০-১ গোলে হেরেছিলেন। সেই টুর্নামেন্টে তিনি ছয় ম্যাচে দুই গোল করেছিলেন।


রেকেল রড্রিগেস সেডেনো, কোস্টারিকা
প্রতিশ্রুতিবান তরুণ থেকে তিনি এখন কোস্টারিকান স্কোয়াডের দুর্দান্ত এক তারকা। উনত্রিশ-বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড এমন একটি জটিল গ্রুপে কোস্টারিকান দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন যেখানে প্রধান ফেভারিট স্পেন। তবে স্পেনের জাতীয় দল ‘লা রখা’র বিপক্ষে খেলা তার জন্য কোন দু:স্বপ্ন না। ২০১৫ সালে কানাডায় বিশ্বকাপে কোস্টারিকার অভিষেক ম্যাচে রড্রিগেজের গোলের সুবাদে কোস্টারিকা স্পেনের সাথে ১-১ গোলে ড্র করেছিল। এই ফরোয়ার্ড প্লেয়ার দলের সিনিয়রদের সাথে ১০০টিরও বেশি ম্যাচ খেলেছেন এবং ৫৬টি গোলের সুবাদে তিনি দলের সর্বকালের সেরা স্কোরার। বর্তমানে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নারী সকার লিগে পোর্টল্যান্ড থর্নস ক্লাবের হয়ে খেলছেন।


অ্যালেক্সিয়া পুটেলাস, স্পেন
হাঁটুর ইনজুরির কারণে নারী ইউরোকাপ মিস করাই হোক কিংবা খেলোয়াড়দের সাথে স্প্যানিশ ফেডারেশনের বিবাদের কারণেই হোক, বিশ্বের সেরা প্লেয়ার হিসেবে দু দু’বার ব্যালন ডি’অর জেতার আগ পর্যন্ত অ্যালেক্সিয়া পুটেলাসের জয়যাত্রা মোটেই সহজ ছিল না। এবারের বিশ্বকাপে ২৯-বছর বয়সী এই মিডফিল্ডারের উপস্থিতি নি:সন্দেহে স্পেনের উচ্চাকাঙ্ক্ষার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এর অভাবেই গত ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের কোয়ার্টার ফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে স্পেনের পরাজয় ঘটেছিল।


অ্যালেক্স মরগান, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
চার বছর আগে ফ্রান্সে ২০১৯ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের জয়সূচক গোল করার পর, চা পান করার ভঙ্গী করে উল্লাস দেখানোর মাধ্যমে ইংল্যান্ডের ভক্তদের ক্ষোভের মুখে পড়েছিলেন অ্যালেক্স মরগান। এখন ৩৪-বছর বয়সে আবারও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে শেষ ধাপে নিয়ে যাওয়ার সুযোগ এবং ক্ষমতা তিনি পেয়েছেন। তার লক্ষ্য টানা তৃতীয়বার শিরোপা জেতা। এর জন্য বিশ্বকাপের ১৮টি ম্যাচে তাকে গোলসংখ্যা নয় থেকে আরো বাড়াতে হবে।  অ্যালেক্স মরগান ২০৭টি ম্যাচে এপর্যন্ত ১২১টি গোল করেছেন। মার্কিন নারী দলের জন্য পুরুষদের সমান বেতনের লড়াইয়ে, কিংবা ২০২৩ নারী বিশ্বকাপের স্পন্সর হিসেবে সৌদি আরবকে বেছে নেয়ার প্রশ্নে তিনি ফিফার প্রবল সমালোচনা করেছিলেন। পরে ফিফা ঐ পরিকল্পনা বাতিল করে।


মেলচি ডুমর্নে, হাইতি
হাইতি এবারই প্রথম নারী বিশ্বকাপে খেলছে। ফ্রেঞ্চ লিগে রিমসে ক্লাব মেলচি’র কোচ আমান্ডিন মিকেল বলেন, আপনাকে মিথ্যে বলবো না, মেলচি ডুমর্নে আমার কাছে কোচিং নেয়া সেরা খেলোয়াড়। ফরাসি লিগে ডুমর্নের পারফরম্যান্সকে ফিফা বিশেষভাবে উল্লেখ করেছে। মাত্র ১৯-বছর বয়সে ঐ মৌসুমের ১৭টি লীগ ম্যাচে তিনি ১১টি গোল করেন।ঐ পারফরম্যান্সের জেরে তিনি ফরাসি ক্লাব লিওর জন্য সাইন করেন, যা মহিলাদের ফুটবলের অন্যতম বিখ্যাত এক ইউরোপীয় ক্লাব।


কিরা ওয়ালশ, ইংল্যান্ড
ইংল্যান্ডের মিডফিল্ডে মেট্রোনোমের গতি এনে দেয়ার কারণে ইউরো ২০২২ ফাইনালের উত্তেজনাপূর্ণ টুর্নামেন্টে কিরা ওয়ালশ ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন। তারপর থেকে তিনি বার্সেলোনা ক্লাবের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন, চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতেছেন এবং বিশ্বের অন্যতম সেরা ফুটবলার হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। ছাব্বিশ-বছর বয়সী কিরা ওয়ালশ দলের হয়ে এপর্যন্ত ৫৯টি ম্যাচ খেলেছেন। তার একটি গুণ যা এই আন্তর্জাতিক ফুটবলারকে এবারের বিশ্বকাপে কাজে লাগাতে হবে তা হলো নেতৃত্ব। কারণ, ইনজুরির কারণে অধিনায়ক লেয়া উইলিয়ামসন এবার খেলতে পারছেন না। এরা দু’জনে খুবই ভাল বন্ধু।


আসিসাত ওশোয়ালা, নাইজেরিয়া
নাইজেরিয়া ১৯৯১ সাল থেকে প্রতিটি নারী বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করেছে, কিন্তু শুধুমাত্র একবার কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছে। এবং সেই বিরল কৃতিত্ব এবার অর্জিত হতে পারে ২৮-বছর বয়সী স্ট্রাইকার আসিসাত ওশোয়ালার হাতে। ইনজুরির কারণে তিনি বার্সেলোনার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা জেতার লড়াইটি মিস করেছিলেন। ওশোয়ালা একটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ, নাইজেরিয়ার হয়ে তিনটি আফ্রিকান চ্যাম্পিয়নশিপ, চীনে পরপর দুটি শিরোপা এবং আর্সেনালের হয়ে ২০১৬ একটি মহিলা এফএ কাপে খেলেছেন। লিভারপুলের হয়ে খেলার সময় ২০১৫ সালে বিবিসির বর্ষসেরা নারী ফুটবলার হিসেবেও তিনি নির্বাচিত হন।


অ্যাডা হেগারবার্গ, নরওয়ে
ফুটবল মাঠে হেগারবার্গ গত এক দশক ধরে অবিসংবাদিতভাবে বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়দের একজন। তিনি ২০১৮ সালে মহিলা ফুটবলের প্রথম ব্যালন ডি’অর বিজয়ী এবং লিওর হয়ে আটটি ফ্রেঞ্চ লিগ শিরোপা এবং ছয়টি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ খেলার ইতিহাস তার রয়েছে। মাঠের বাইরে ২৮-বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড একটি গুরুতর ইনজুরি থেকে সেরে উঠেছেন। পাশাপাশি, নরওয়েজিয়ান ফুটবল ফেডারেশন নারী ফুটবলের নিয়ে যে আচরণ করছে তার প্রতিবাদে জাতীয় দল বর্জন থেকে তিনি ২০২২ সালে সরে আসেন। হেগারবার্গ নরওয়ের হয়ে এপর্যন্ত ৭৬টি ম্যাচে মোট ৪৩টি গোল করেছেন।


মার্টা কক্স, পানামা
মাত্র ১৪-বছর বয়সে তিনি পানামানিয়ান জাতীয় দলে যোগদান করেন। এই মিডফিল্ডার এবার যখন অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডে গিয়ে হাজির হলেন তখন তার বয়স হয়েছে ২৫ বছর। মেক্সিকোর ইনাসিও কুইন্টানার নেতৃত্বে থাকা সেন্ট্রাল আমেরিকান টিমে তিনি একজন গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়। বয়স অল্প হওয়া সত্ত্বেও কক্স ইতিমধ্যে দলের হয়ে পাঁচটি দেশে ম্যাচ খেলেছেন। তিনি বর্তমানে মেক্সিকোতে লিগা এমএক্স ফেমেনিলে টুর্নামেন্টে পাচুকা ক্লাবের হয়ে খেলছেন। এবারের বিশ্বকাপ থেকে শুরু হবে তার দু:সাহসিক অ্যাডভেঞ্চার। কিন্তু ব্রাজিলের বিপক্ষে তার অভিষেকটি সহজ হবার নয়। প্যারাগুয়ের বিপক্ষে প্লে-অফে তার ফ্রি-কিক সহায়তা থেকে সতীর্থ লিনেথ সেডেনো গোল করেছিলেন।