ফ্রিল্যান্সিংয়ে স্বাবলম্বী মাদরাসাছাত্র মোস্তাকিম

ডেস্ক: দিন দিন জনপ্রিয় হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং। ফ্রিল্যান্সিং করে স্বাবলম্বী হচ্ছে অনেকেই। তাদের মধ্যে মোস্তাকিমও একজন। নাটোর জেলার গুরুদাসপুরের সীমান্ত নাছিয়ারকান্দী গ্রামের ছেলে মোস্তাকিম। পূর্ণ নাম মোস্তাকিম জনি। পড়ালেখা করেন মাদরাসায়। চট্টগ্রামের হাটহাজারি মাদরাসায় মিশকাতে পড়ছেন মোস্তাকিম।

মোস্তাকিম শুরুতে মাইক্রোসফট অফিস অ্যাপ্লিকেশনের ওপর ক্লাস নিতেন। কিন্তু তাতে দিনাতিপাত হচ্ছিল না। একারণে আয়ের বিকল্প চিন্তা ঘিরে ধরে। সেসময় নতুন করে ডিজিটাল মার্কেটিং, গ্রাফিক্স ডিজাইন, ভিডিও এডিটিং, ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্টের মতো কাজ তিনি রপ্ত করেন। এরপর ২০১৭ সালে শুরু হয় তার ফ্রিল্যান্সিং জগতের কর্মযজ্ঞ।

তিনি বলেন, ‘ফ্রিল্যান্সিংয়ে প্রবেশ করে আমি সফল হয়েছি। ঘুঁচছে সংসারের অভাবও। এখন সংসারের চাহিদা পূরণ করে নিজের লেখাপড়ার খরচ চালাই। আমি বর্তমানে চট্টগ্রামের হাটহাজারি মাদরাসায় মিসকাতে পড়ছি। সহায়তা পেলে ফ্রিল্যান্সিংয়ের জন্য বড় ইনস্টিটিউট গড়তে চাই।’

মোস্তাকিমের বাবা লোকমান হোসেন জানালেন, তিন ছেলে ও স্ত্রীকে নিয়ে তার সংসার। তিনি পেশায় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ছিলেন। এলাকায় ক্রোকারিজের ব্যবসা করলেও বয়সের ভারে এখন পারছেন না। কিন্তু ওই সীমিত আয়ে তিন ছেলের লেখাপড়া এবং সংসারের খরচ বহন করা কষ্টসাধ্য ছিল।

মেঝ ছেলে মোস্তাকিম জনি কওমি মাদরাসায় লেখাপড়া করলেও ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে আয় শুরু করেন। মূলত তারপর থেকেই সংসারে অভাব দূর হতে থাকে। ফ্রিল্যান্সিংয়ের অর্থে তারা এখন স্বাবলম্বী।