ভাষা শহীদ আবুল বরকতের জীবনকথন

বাঙালীর প্রাণের আন্দোলন ভাষা আন্দোলন। পাকিস্তান জন্মের মাস সাতেক পরে, ১৯৪৮ সালের মার্চে মোহাম্মদ আলি জিন্নাহ ঢাকা আসেন। তখন বক্তৃতায় তিনি বলেছিলেন, আমি খুব স্পষ্ট করেই আপনাদের বলছি যে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা হবে উর্দু, এবং অন্য কোন ভাষা নয়। কেউ যদি আপনাদের বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করে তাহলে সে আসলে পাকিস্তানের শত্রু।

মূলত এরপরই বাঙালীর মনে ক্ষোভের দানা বাঁধতে শুরু করে। এটাই পরে ভাষা আন্দোলনে রূপ নেয়। বাংলাকে রাষ্ট্র ভাষার আন্দোলনে ১৯৫২ সালে শহীদ হন আবুল বরকত। বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয়ভাবে তাকে শহীদ হিসেবে ভূষিত করা হয়।

ভাষা শহীদ আবুল বরকত ১৯২৭ সালের ১৩ জুন তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার ভরতপুর অঞ্চলের বাবলা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার ডাক নাম আবাই। পিতার নাম শামসুদ্দিন ও মাতার নাম হাসিনা বেগম। বাবলা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তিনি তার শিক্ষাজীবন শুরু করেন।

আবুল বরকতের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সূচনা হয় বাবলা বহড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। তিনি ১৯৪৫ সালে তালিবপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক ও ১৯৪৭ সালে বহরমপুর কৃষ্ণনাথ কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক সম্পন্ন করেন। ভারত বিভাগের পর ১৯৪৮ সালে তার পরিবার ঢাকাতে চলে আসে। ১৯৫১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ থেকে দ্বিতীয় শ্রেণিতে চতুর্থ হয়ে স্নাতক সম্পন্ন করেন এবং একই বিভাগে স্নাতকোত্তরে ভর্তি হন।

ভাষা আন্দোলন

১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি নুরুল আমিন সরকারের জারি করা ১৪৪ ধারা ভেঙে রাষ্ট্র ভাষা বাংলার দাবিতে মিছিল করার সময় পুলিশের গুলিতে শহীদ হন এ ভাষাপ্রেমিক। আনুমানিক বিকেল ৩টার সময় ছাত্র-জনতার সঙ্গে সংঘর্ষ তীব্র হয়ে উঠলে পুলিশ কোনো সতর্কতা ছাড়াই গুলি ছুড়লে এ ঘটনা ঘটে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আমতলায় শুরু হওয়া সংঘর্ষ একসময় ঢাকা মেডিকেলের ছাত্র হোস্টেলেও ছড়িয়ে পড়ে। পুলিশ অতর্কিত হামলে পড়ে ছাত্রদের ওপর। চলতে থাকে বুলেট আর ছাত্রদের ইটের লড়াই। একই সঙ্গে আকাশ-বাতাস প্রকম্পিত হয় ‘রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই’ স্লোগানে।

একসময় ছাত্রদের প্রতিরোধ অতিক্রম করে পুলিশ ঢুকে পড়ে হোস্টেলে এবং অতর্কিত গুলি ছুড়তে থাকে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হোস্টেলের ১২ নম্বর শেডের বারান্দায় গুলিবিদ্ধ হন রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের এমএ-র ছাত্র আবুল বরকত। তলপেটে লেগেছে গুলি। তখন তাঁর গায়ে ছিল নীল রঙের হাওয়াই হাফ-শার্ট, পরনে খাকি প্যান্ট, পায়ে ছিল কাবুলি স্যান্ডেল। তাঁর দুই পা এবং মাথা সঙ্গীরা কাঁধে তুলে নিয়ে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। পথিমধ্যে পানি খেতে চাইলে, পানির অপ্রতুলতায় তাকে রুমাল চুষতে দেওয়া হয়।

এ সময়ও বরকত সাহস হারাননি এবং আন্দোলন যেন স্থিমিত না হয় সেদিকে খেয়াল রেখে বলেছেন- ‘খুব কষ্ট হচ্ছে, বাঁচব না। বিষ্ণুপ্রিয়া ভবন, পুরানা পল্টনে খবর পৌঁছে দেবেন।’

ঢাকা মেডিকেল কলেজের হাসপাতালে জরুরি বিভাগে ভর্তি অবস্থায় রাত আটটার দিকে মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুর পর তার মাতা হাসিনা বেগম ১৯৬৩ সালে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার উদ্বোধন করেন।

২১ ফেব্রুয়ারি, ১৯৫২ সালের রাতে আবুল বরকতের আত্মীয়-স্বজনের উপস্থিতিতে একজন ম্যাজিস্ট্রেটের তত্ত্বাবধানে আজিমপুর কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হয়। রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনে আবদুস সালাম, রফিক, জব্বার, শফিউর রহমান প্রমুখ শহীদদের অন্যতম তিনি।

সম্মাননা
ভাষা আন্দোলনে আত্মত্যাগের জন্য ২০০০ সালে বাংলাদেশ সরকার বরকতকে একুশে পদক প্রদান করে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে তার স্মরণে ভাষা শহীদ আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘর নামে একটি জাদুঘর প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। ভাষা শহীদ আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘর ও সংগ্রহশালাটি ২০১২ সালে উন্মুক্ত করা হয় এবং এটি তৈরিতে অর্থ সহায়তা করে ঢাকা সিটি করপোরেশন।