যেভাবে রান্নাঘরের তেল চিটচিটেভাব দূর করবেন

চেরাগদানী : রান্না করার জায়গাটি যদি খোলামেলা ও সুন্দর হয়ে থাকে, রান্না করার আগ্রহ বেড়ে যায় অনেকটাই। হেঁশেলে ঢুকতে তখন ভালোই লাগবে। ছোট আয়তনের ফ্ল্যাটগুলোর রান্নাঘর ছোটই হয়ে থাকে। এরপর যতই সাবধানতা অবলম্বন করুন না কেন, তেল, তরকারির ঝোল, ভাতের মাড়, মসলাবাটা—এটা-সেটা পড়বেই চুলার আশপাশে। রান্নার সময় ধোঁয়া বাতাসের জলীয় বাষ্পের সঙ্গে এক হয়ে একধরনের আঠালো ভাবও তৈরি করে ফেলে। এতে রান্নাঘরের দেয়াল ও অন্যান্য জিনিসপত্র তেল চিটচিটে হয়ে যায়। কিছু নিয়ম মেনে চললে তেল চিটচিটে ভাব দূর করে ঝকঝকে করে রাখা যায় আপনার হেঁশেলটা।

প্রতিদিন হয়তো সময় হয় না রান্নাঘরের জিনিসপত্র পরিষ্কার করার। তবে মাসে অন্তত দু-তিনবার সব জিনিস পরিষ্কার করে ফেলতে পারেন। হালকা গরম পানিতে ডিটারজেন্ট ও একটু লেবুর রস বা কয়েক ফোঁটা ভিনেগার মিশিয়ে ওই পানি দিয়ে পরিষ্কার করলে ঝকঝকে হয়ে যাবে। না হলে রান্না করতে গেলে গায়ে লেগে থাকা আঠালো পদার্থ হাতে লেগে যাবে এবং তৈরি হবে একধরনের অস্বস্তি। রান্নাঘরে যদি ওভেন, ব্লেন্ডার, ফ্রিজ থাকে, তবে প্রতিদিনই এসব যন্ত্রের বাইরের অংশ পরিষ্কার করা উচিত। তা না হলে প্রতিদিনের রান্না থেকে উৎপন্ন ধোঁয়াযুক্ত বাষ্প তেল চিটচিটে আঠালো ভাবটা স্থায়ী হয়ে যাবে। পরে এগুলো পরিষ্কার করা খুব কষ্টসাধ্য বিষয় হয়ে যায়। যেভাবে রান্নাঘরের চিটচিটেভাব দূর করবেন-

গ্যাসের কারণে রান্নাঘরে চিটচিটেভাব আসে। তাই রান্নাঘরে গ্যাসের চারপাশে টাইলস লাগান। টাইলস পরিষ্কার করাও অনেকটা সহজ। এতে চিটচিটেভাব অনেকটা কমে যাবে। রান্নাঘরের ব্যবহৃত বিভিন্ন জিনিসপত্র যেমন বিভিন্ন মশলার কৌটো, আনুষঙ্গিক সামগ্রী সপ্তাহে অন্তত একদিন পরিষ্কার করুন। গ্যাসের ওভেনের ভেতর ময়লা জমলে ওভেনের আগুনের শিখা লালাভ হয়। ফলে রান্নাঘরে তেলচিটচিটেভাব হওয়ার বেশি সম্ভাবনা থাকে। তাই রান্নাঘরের ওভেন পরিষ্কার রাখুন। প্রতিদিন রান্না করার পর ওভেন পরিষ্কার করুন। লিকুইড ক্লিনার দিয়ে ওভেনের আশপাশও পরিষ্কার করে নিন। রান্নাঘরে মোটা ঝুল জমে বেশি। এছাড়া রান্না করবার সময় রান্না করা তেল পুড়ে ওপর দিকে ওঠে। তাই রান্নাঘরে চিটচিটেভাব হয়ে যায়। তাই সপ্তাহে একবার রান্নাঘরের ঝুল পরিষ্কার করুন। রান্নাঘরের জানালার গ্রিলেও তেল ও ঝুল আটকায়। তাই কিছুদিন পরপর সাবান-পানিতে ভিজিয়ে স্পঞ্জ বা কাপড় দিয়ে রান্নাঘরের জানালার গ্রিল পরিষ্কার করুন। রান্নাঘর থাকা বাড়তি জিনিস সরিয়ে রান্নাঘরের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র আলাদা প্যাকেটে রেখে দিন।