শরীরে ক্যালসিয়াম কমে গেলে কী হয়?

ডেস্ক: শরীরে ক্যালসিয়ামের মাত্রা কমে গেলে বিভিন্ন শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়াগুলোতে উল্লেখযোগ্য প্রভাব পড়তে পারে। এর ফলে পেশীতে খিঁচুনি, ঝাঁকুনি, দুর্বলতা এবং হাড়ের ঘনত্ব হ্রাসের মতো উপসর্গ দেখা দেয়। শরীরে ক্যালসিয়ামের মাত্রা স্বাভাবিক সীমার নিচে নেমে গেলে (সাধারণত 8.5 mg/dL এর নিচে) একে হাইপোক্যালসেমিয়া বলা হয়। হাইপোক্যালসেমিয়া হলে বিভিন্ন উপসর্গ এবং স্বাস্থ্য জটিলতায় প্রকাশ এর লক্ষণ প্রকাশ পায়। জেনে নিন, শরীরে ক্যালসিয়াম কমে গেলে কী হয়-

মস্তিষ্কের দুর্বলতা: ক্যালসিয়ামের মাত্রা কমে গেলে তা মানসিক স্বচ্ছতাকে প্রভাবিত করতে পারে। ক্যালসিয়াম আয়ন মস্তিষ্কে নিউরোট্রান্সমিটার রিলিজ এবং সিনাপটিক সংক্রমণে কাজ করে এবং ক্যালসিয়াম হোমিওস্ট্যাসিসের সঙ্গে জড়িত এর প্রক্রিয়া। যে কারণে শরীরে ক্যালসিয়ামের মাত্রা কমে গেলে তা স্মৃতিশক্তি কমিয়ে দিতে পারে।

দুর্বলতা এবং ক্লান্তি: ক্যালসিয়ামের অভাবে দুর্বলতা, ক্লান্তি এবং অলসতা দেখা দিতে পারে। পেশীর সর্বোত্তমভাবে কাজ করার জন্য পর্যাপ্ত ক্যালসিয়াম প্রয়োজন। ক্যালসিয়ামের ঘাটতির কারণে পেশীর শক্তি এবং সহনশীলতা দুর্বল হতে পারে, এর ফলে সাধারণ দুর্বলতা এবং শক্তির মাত্রা হ্রাস পায়।

হার্টের ছন্দের অস্বাভাবিকতা: ক্যালসিয়াম হৃৎপিণ্ডের পেশী সংকোচন নিয়ন্ত্রণে এবং স্বাভাবিক হার্টের ছন্দ বজায় রাখতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। হাইপোক্যালসেমিয়া এই প্রক্রিয়াগুলোকে ব্যাহত করতে পারে। এর ফলে অ্যারিথমিয়াস বা এমনকি গুরুতর ক্ষেত্রে কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হতে পারে।

দাঁতের সমস্যা: ক্যালসিয়ামের ঘাটতি দাঁতের স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করে, যার ফলে দাঁতের এনামেল দুর্বল হয়ে যায়, দাঁতের ক্ষয় হয় এবং মাড়ির রোগের ঝুঁকি বেড়ে যায়। ক্যালসিয়াম শক্তিশালী দাঁত বজায় রাখার জন্য এবং মুখের স্বাস্থ্য ভালো রাখার জন্য অপরিহার্য। ক্যালসিয়ামের অভাবে দাঁত ভঙ্গুর হয়ে যায়।

হাড়ের ঘনত্ব হ্রাস: দীর্ঘ সময় ধরে ক্যালসিয়ামের মাত্রা কম থাকলে তা হাড়ের স্বাস্থ্যে ক্ষতি করে এবং অস্টিওপরোসিসের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। এটি যা হাড়ের ঘনত্ব হ্রাস করে এবং ফ্র্যাকচারের ঝুঁকি বাড়ায়। পর্যাপ্ত ক্যালসিয়াম না থাকলে হাড় দুর্বল, ভঙ্গুর এবং ধীরে ধীরে ফ্র্যাকচারের ঝুঁকিতে পড়ে।

ঝিনঝিন এবং অসাড়তা: হাইপোক্যালসেমিয়া বিশেষত হাত, পা, মুখ এবং মুখের চারপাশে ঝাঁকুনি, অসাড়তা বা সূঁচ ফোটানোর মতো অনুভূতি সৃষ্টি করতে পারে। স্নায়ু সংক্রমণে বাধার কারণে এটি ঘটে, কারণ সঠিক স্নায়ু ফাংশন বজায় রাখার জন্য ক্যালসিয়াম আয়ন অপরিহার্য।

পেশী ক্র্যাম্প এবং খিঁচুনি: শরীরে ক্যালসিয়ামের মাত্রা কমে গেলে তা পেশী ক্র্যাম্প, খিঁচুনি এবং শক্ত হয়ে যাওয়ার মতো সমস্যার কারণ হতে পারে। ক্যালসিয়াম পেশী সংকোচন এবং শিথিলকরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। যখন ক্যালসিয়ামের মাত্রা কম থাকে, তখন পেশীগুলো সংকুচিত হতে পারে, যার ফলে ক্র্যাম্পিং এবং অস্বস্তি হয়, বিশেষ করে পা এবং হাতে।