শাওয়াল মাসের ৪টি আমল

শাওয়াল হিজরী বর্ষের দশম মাস। শাওয়াল শব্দের অর্থ উঁচু করা, উন্নত করা, পূর্ণতায় পৌঁছে দেওয়া, পরিপক্বতা ও স্থিতি লাভ করা এবং একে শাওয়ালুল মোকাররম বলা হয়। এটি হজের তিন মাসের প্রথম মাস, যার প্রথম তারিখে ঈদুল ফিতরের নামাজ ও সদকাতুল ফিতর আদায় করা ওয়াজিব। এ মাসে বিশেষ চারটি আমল রয়েছে।

প্রথম আমল: পবিত্র রমজানুল মোবারকের ছুটে যাওয়া রোজা সর্বাগ্রে এ মাসেই তা কাজা আদায় করে নেওয়া।

দ্বিতীয় আমল: শাওয়াল মাসের ছয়টি রোজা রাখা। প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, যে ব্যক্তি রমজান মাসের রোজা পালনের পর শাওয়াল মাসের ছয়টি রোজা রাখবে সে যেন সারা বছরই রোজা রাখল এবং সে পরিমাণ সওয়াব লাভ করবে। (মুসলিম, তিরমিজি, আবু দাউদ)।

তৃতীয় আমল: শাওয়াল মাসে বিবাহ করা। হজরত আয়েশা রা. থেকে বর্ণিত হাদিস দ্বারা প্রমাণিত, শাওয়াল মাসে বিবাহ-শাদি করা সুন্নত। শুক্রবারে, জামে মসজিদে ও বড় মজলিসে অনুষ্ঠিত হওয়া সুন্নত। কারণ হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহুতায়ালা আনহার বিয়ে শাওয়াল মাসের শুক্রবারে মসজিদে নববীতে হয়েছিল। বিবাহ একটি গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। এ সম্পর্কে রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, বান্দা যখন বিবাহ করল তখন তার দীনদারী অর্ধেক পূর্ণ হয়ে গেল, অবশিষ্ট অর্ধেকের ব্যাপারে সে যেন আল্লাহকে ভয় করতে থাকে। (মিশকাত)। বিবাহের মাধ্যমে আল্লাহর রসুলের নির্দেশ পালন করা হয়। কেননা তিনি ইরশাদ করেন, বিবাহ করা আমার সুন্নত।

চতুর্থ আমল: শাওয়াল মাসে হজের প্রস্তুতি নেয়া। যারা হজের নিয়ত করেছেন তাদের গুরুত্বপূর্ণ কাজ হলো তারা যেন হজের যাবতীয় মাসআলা-মাসায়েল শিক্ষা করেন। এবং আল্লাহ ও বান্দার হক যথারীতি সমাধান করা। এবং মহান রব্বুল আলামিনের দরবারে বেশি বেশি কায়মনোবাক্যে দোয়া করতে থাকা।